২৩/০৮/২০২১ থেকে প্রাভা হেলথ রোগীদের সেবাদান করতে পুনরায় তাদের সকল সার্ভিস আবারও শুরু করছে। ডিজিএইচএস গত ২ আগস্ট ২০২১ তারিখে তাদের কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করে।

২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠার সময় থেকে প্রাভা হেলথ দায়িত্বের সাথে ডিজিএইচএস প্রদত্ত সকল গাইডলাইন ও পলিসি নির্দেশনা মেনে আসছে এবং আন্তর্জাতিক মানের ক্লিনিকাল কোয়ালিটি বজায় রেখেছে।

গত জুলাইতে একটি অনুসন্ধান এবং পরিদর্শনকালে কিছু মৌখিক এবং গৌণ বিষয় পরিবর্তনের সুপারিশ করা হয় যার কোনটিই প্রাভা এর ক্লিনিকাল গুণমান বা আমাদের প্রদত্ত চিকিৎসা সেবা সম্পর্কিত ছিল না। সুপারিশগুলির মধ্যে রয়েছে: প্রাভার ডোনিং এবং ডোফিংয়ের জন্য আলাদা জায়গা না থাকা, ভ্রমণকারীদের কোভিড পরীক্ষার জন্য ১৫০ টাকা নিবন্ধন ফি নেওয়া, এমবিবিএস ডাক্তার দ্বারা পরীক্ষা না করিয়ে কোভিড টেস্টে স্বাক্ষর করা এবং কোম্পানির ওয়েবসাইটে ডব্লিউএইচও কে পার্টনার হিসেবে উল্লেখ করা। এই সমস্ত সুপারিশগুলি অবিলম্বে ২ আগস্ট, ২০২১ তারিখের স্থগিতাদেশ নোটিশের আগেই যথাযথভাবে সমাধান করা হয়েছিল। এই পদক্ষেপগুলির মধ্যে রয়েছে ডোনিং এবং ডোফিং এরিয়া আলাদা করা, বিদেশগামী যাত্রীদের কোভিড পরীক্ষার জন্য ১৫০ টাকা রেজিস্ট্রেশন ফি নেওয়া বন্ধ করা, কোভিড রিপোর্টে সাইন অফ করার জন্য অতিরিক্ত একজন ভাইরোলজিস্ট (এমবিবিএস ডাক্তার) এর যোগদান এবং প্রাভার ওয়েবসাইটে “পার্টনার”-কে “কর্পোরেট ক্লায়েন্ট” হিসেবে সংশোধন করা।

“পরিস্থিতির সমাধান হওয়াতে আমরা অনেক আনন্দিত এই কারণে যে, দেশের এই পাবলিক হেলথ ক্রাইসিসের মাঝে আমরা আবারও সকল রোগীকে পুনরায় সেবা দিতে পারবো। আমাদের অনুশোচনা এই যে, গত ৩ সপ্তাহে ঢাকা ও দেশের বিভিন্ন প্রান্ত থেকে যেসকল কয়েক হাজার রোগী আমাদের সাথে যোগাযোগ করেছেন তাদের আমরা সেবা দিতে পারিনি।”, বললেন সিলভানা কিউ সিনহা, ফাউন্ডার, চেয়ার, এবং প্রাভা হেলথ এর সিইও।

প্রাভার চিফ মেডিকেল অফিসার ডা. সিমিন এম. আক্তার আরও যোগ করেন, “আমাদের সকল সেবাগ্রহীতাকে আমরা বলতে চাই, সহানুভূতিশীল ও মর্যাদাপূর্ণ বিশ্বমানের স্বাস্থ্য সেবা দেশের সকল মানুষের প্রাপ্য, এই বিশ্বাসে আমরা প্রাভা হেলথ প্রতিষ্ঠা করি। এই আকাঙ্ক্ষা ও বিশ্বাস বজায় রেখে আমরা ২০১৭ সাল থেকে লক্ষাধিক রোগীকে আমরা সেবা দিয়েছি এবং  ১,৫০,০০০ এরও বেশি সংখ্যক কোভিড-১৯ পরীক্ষা সম্পন্ন করেছি।”

প্রাভার ল্যাবরেটরি এবং টেস্টিং এর কোয়ালিটি সম্পর্কে প্রাভার সিনিয়র ল্যাবরেটরি ডিরেক্টর ডা. জাহিদ হুসেইন বলেন, “প্রাভার ল্যাব সরঞ্জাম অত্যাধুনিক, যেমনটা বিশ্বের সেরা ল্যাব গুলোতে দেখা যায় এবং কোভিড-১৯ পরীক্ষায় আমরা শুধুমাত্র বাংলাদেশ সরকার ও ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন উভয় অনুমোদিত রিএজেন্ট ব্যবহার করি।”

প্রাভা হেলথ গুরুত্ব দিয়ে বলতে চায় যে, বাংলাদেশ ও সারা বিশ্ব যে ক্ষয় ও দুর্দশা নিয়ে এই মহামারীর মধ্য দিয়ে যাচ্ছে, সেখানে তারা সততা ও স্বচ্ছতা বজায় রেখে সকল রোগীদের সেবা দিতে থাকবে।

English

Recommended Posts

No comment yet, add your voice below!


Add a Comment